করোনা ভাইরাস নিয়ে আতঙ্ক বাংলাদেশ !

করোনা ভাইরাস বর্তমানে পৃথিবীর মানুষের কাছে একটি আতংকের নাম চীন থেকে বিভিন্ন দেশে ছড়িয়ে পড়েছে করোনা ভাইরাস। এই ভাইরাসের ব্যাপকতা এবং প্রাণহানির সংখ্যা সবার মনে আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়েছে।বিভিন্ন গণমাধ্যম এবং বিশ্বগণমাধ্যমের মাধ্যমে ধারণা করা হচ্ছে যদি ভাইরাসটিকে লক্ষ লক্ষ জজ মানুষ মারা যাবে। তবে এক্ষেত্রে সচেতন থাকলেই করোনা ভাইরাস সংক্রমণ প্রতিরোধ করা সম্ভব। এই ভাইরাসটি মানুষের শরীরে আক্রমণ করে আচমকা। ভাইরাসের লক্ষণ জানতে পাঁচ থেকে সাত দিন সময় লাগে মানুষের শরীরে। প্রথম লক্ষণ দেখা দিবে জ্বর তারপর দেখা দিবে হাসি বুকে ব্যথা ও শ্বাসকষ্ট বাড়তে থাকবে।তবে এর শ্বাসকষ্ট ধারণ টা একটু অন্যরকম লম্বা লম্বা শ্বাস গ্রহণের সময় বুকে চাপ অনুভূত হতে পারে । এই ভাইরাসটি সরাসরি মানুষের ফুসফুসে আঘাত হানে এজন্য শ্বাসকষ্ট বাড়তে পারে দেখা দিতে পারে নিউমোনিয়া ফুসফুসে সংক্রমণের পর এই ভাইরাসটি শরীরে ছড়িয়ে পড়ে অঙ্গ পতঙ্গ অকার্যকর ও কিডনি বিকল হয়ে মৃত্যু পর্যন্ত হতে পারে ।

 

ভাইরাসের প্রতিকারের উপায় এপর্যন্ত করোনা ভাইরাস এর কোনো চিকিৎসা আবিষ্কৃত হয় বিজ্ঞানীরা চিকিৎসাবিজ্ঞান অক্লান্ত পরিশ্রম করে যাচ্ছেন এ ভাইরাসের টিকা আবিষ্কার এখনো পর্যন্ত সফল হওয়ার খবর পাওয়া যায়নি তবে সংক্রমণ থেকে রেহাই পাওয়ার জন্য কিছু নিয়ম মানলেই অনেকাংশে রেহাই পাওয়া সম্ভব নিয়ম সমূহ ১. বাইরে বের হওয়ার সময় মাক্স ব্যবহার করতে হবে ২. বাহিরে পরা মহিলা কাপড় চোপড় ধুয়ে পরিষ্কার করে পরিধান করতে হইবে ৩ বাইরে থেকে ফেরার পর ভালোভাবে হাত ধুতে হবে ৪. চোখ নাক ও মুখের সংস্পর্শ থেকে যতদূর সম্ভব হাত সরিয়ে রাখতে হবে ৫. জ্বর সর্দি কাশি আক্রান্ত ব্যক্তির কাছাকাছি যাওয়া যাবে না ৬. অসুস্থ জীবজন্তু থেকে দূরে থাকতে হবে ৭. খামার গোয়ালঘর কিংবা বাজারের মত জায়গা এড়িয়ে চলতে হবে ৮ কোন পশু স্পর্শ করলে ভালোভাবে হাত ধুতে হবে ৯. ফলের রস পর্যাপ্ত পানি পান করতে হবে ১০. ডিম বা মাংস ভালোভাবে সিদ্ধ করে রান্না করতে হবে ১১. ঝুঁকিতে থাকা ব্যক্তি গণপরিবহন পরিহার করতে হবে ১২. উচ্চতাপ মাত্রা এবং রোদে সুখিয়ে ভালোভাবে কাপড় পরিধান করতে হবে সর্বোপরি সচেতনতায় পারে এই রোগ থেকে আপাতত মুক্তি রাখতে যেহেতু এরও কোনো প্রতিষেধক টিকা এখনও আবিষ্কৃত হয়নি

Sharing is caring!

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *