ক্ষমা চাইলেন মারমুখী মুশফিক

বঙ্গবন্ধু টি-২০ কাপের এলিমিনেটরে গতকাল মুখোমুখি হয়েছিল বেক্সিমকো ঢাকা ও ফরচুন বরিশাল।  ম্যাচটিতে হারলেই ছিটকে পড়তে হবে আসর থেকে।  এমন সমীকরণে মাঠে নামতে হয়েছে দুই দলকে।  প্রচণ্ড চাপের মুখে ছিল বেক্সিমকো ঢাকা।  কিন্তু চাপ সামলাতে না পেরে ঠাণ্ডা মাথার খেলোয়াড় হিসেবে পরিচিত ঢাকার অধিনায়ক মুশফিকুর রহিমও ম্যাচ চলাকালে মেজাজ হারিয়েছিলে দুইবার!

খেলা চলাকালীন ঢাকার অধিনায়ক মুশফিকুর রহিমকে মেজাজ হারিয়ে সতীর্থদের সঙ্গে উত্তেজিত আচরণ করতে দেখা গেছে।  স্পিনার নাসুম আহমেদকে মারতে দুইবার হাতও উঠিয়েছিলেনি তিনি।  মুসফিকের এমন আচরণে আলোচনা-সমালোচনার ঝড় ওঠেছে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে।  অনেকেই এ ঘটনার জন্য মুশফিককে দুষতে থাকেন।

প্রথম ঘটনা বরিশালের ইনিংসের ১৩ তম ওভারের সময়। ওই ওভারে নাসুমকে পরপর দুটি ছক্কা মেরেছিলেন আফিফ।  চাপের মুখেও এমন বোলিংয়ে বিরক্ত হয়েছিলেন মুশফিক।  পরের বলে মিডউইেকেট বল ঠেলে সিঙ্গেল নেন আফিফ।  তখণ বল কুড়িয়ে নাসুমের হাতে তুলে দেওয়ার সময় মুশফিককে মারমুখী আচরণ করতে দেখা যায়।

এরপর ইনিংসের ১৭তম ওভারে ঘটে একই ঘটনার পুনরাবৃত্তি। শফিকুলের বলে শর্ট ফাইন লেগে আফিফ ক্যাচ কুলে দিলে পজিশন ছেড়ে সেটি ধরতে উইকেটের পেছন থেকে দৌঁড়ে যান মুশফিক।  ক্যাচটি নিতে একই সঙ্গে ছুটে গিয়েছিলেন নাসুমও।  যদিও শেষ পর্যন্ত নাসুম দাঁড়িয়ে মুশফিককে ক্যাচ নেওয়ার সুযোগ করে দেন, তবে ক্যাচটি নিয়ে ঘুরে দাঁড়িয়ে ফের একই ভঙ্গিতে নাসুমকে মারার জন্য উদ্যত হন মুশফিক!

তবে অধিনায়কের কাছ থেকে এমন অপ্রত্যাশিত আচরণে বিস্মিত হন নাসুম।  পরিস্থিতি সামলাতে নাসুম মুশফিকের কাঁধে হাত রেখে পরিস্থিতি স্বাভাবিক করার চেষ্টা করেন।  মুশফিক তাতে সায় দেওয়ায় অপ্রীতিকর ঘটনাটি আর বড় হয়নি।

এ ঘটনায় এবার মুখ খুললেন মুশফিক নিজেই।  সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ক্ষমা চেয়ে পোস্ট দিয়েছেন তিনি।  নিজের ভেরিফায়েড পেজে নাসুমের সঙ্গে একটি ছবিও দিয়েছেন মুশি।  তিনি লিখেছেন, ‘আসসালামুয়ালাইকুম সবাইকে, প্রথমত, গতকালের ম্যাচে অনাকাঙ্ক্ষিত ঘটনার জন্য আমি আমার সব ভক্ত এবং শুভাকাঙ্ক্ষীদের কাছে ক্ষমা প্রার্থনা করছি। আমি ইতোমধ্যে ম্যাচ শেষে আমার টিমমেট নাসুমের কাছেও ক্ষমা চেয়েছি। দ্বিতীয়ত, আমি সর্বশক্তিমান আল্লাহর কাছেও ক্ষমা চাচ্ছি। আমি সবসময় বিশ্বাস করি সবকিছুর ঊর্ধ্বে মানুষ হিসেবে আমি যেটা করেছি সেটা কারো কাছেই গ্রহণযোগ্য নয়। আমি কথা দিচ্ছি অদূর ভবিষ্যতে মাঠে কিংবা মাঠের বাইরে এমন ঘটনার পুনরাবৃত্তি করব না।’

Sharing is caring!

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *