বরণে প্রস্তুত বাংলাদেশ কিছুক্ষণের মধ্যেই নামবেন বীর যুবারা।

আর মাত্র কিছুক্ষণের অপেক্ষা। এরপরই স্বপ্নের বিশ্বকাপ ট্রফি নিজ দেশে পৌঁছাবে। বুধবার (১২ ফেব্রুয়ারি  বিকেল ৪টা ৫০ মিনিটে হযরত শাহজাহাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে পা রাখবেন বিশ্বচ্যাম্পিয়নরা। দীর্ঘ ১২ ঘণ্টায় প্রায় ৯ হাজার কিলোমিটার পথ পাড়ি দেশের মাটিতে পা রাখবেন।

বীরের বেশে দেশের মাটিতে পা রাখার সঙ্গে সঙ্গেই উষ্ণ অভ্যর্থনা দেয়া হবে। তাদের বরণে প্রস্তুত গোটা বাংলাদেশ। যোগ্য সম্মান দেওয়া হচ্ছে বিশ্বকাপজয়ী অনূর্ধ্ব-১৯ দলকে। যার অংশ হিসেবে বিমানবন্দরে ‘ওয়াটার স্যালুট’ পাচ্ছেন আকবর আলীরা।

তাদের বরণে প্রস্তুত মিরপুরের ক্রিকেট পাড়াও। ক্রিকেটারদের সাথে সেই ট্রফিকে বরণ করে নিতে মিরপুর স্টেডিয়াম সেজেছে বাহারি রং-এ। হোম অব ক্রিকেট খ্যাত শের-ই-বাংলা জাতীয় ক্রিকেট স্টেডিয়ামের করপোরেট অফিসের মূল ফটকের সামনে টানানো হয়েছে অনূর্ধ্ব-১৯ দলের প্রমাণ সাইজের ব্যানার। অদূরে আরও দুটি ছোট ব্যানার। একই সাথে ভবনের তিন তলা জুড়ে লাগানো হয়েছে ঝাঁড় বাতি।


তবে এতেই ক্ষান্ত যাচ্ছে না বোর্ড। বিকেল ৪.৫০ মিমিটে যুবাদের বহনকারী বিমান দেশে পৌঁছানোর পর বিশেষভাবে অভ্যর্থনা জানাতে চাচ্ছে বিসিবি। যেখানে রাখা হয়েছে ওয়াটার স্যালুটের ব্যবস্থা। মূলত কোন বিমানের প্রথম ও শেষ যাত্রায় দেয়া হয় ওয়াটার স্যালুট। এছাড়াও বিমানের কোন কর্মকর্তার অবসরের সময়ও দেওয়া হয় এই বিশেষ স্যালুট। কিন্তু ক্রিকেট তথা দেশের ক্রীড়াঙ্গনে এমন নজির প্রথম।

ওয়াটার স্যালুট বলতে মূলত বিশ্বকাপজয়ী দলকে নিয়ে অবতরণ করা বিমানের দুই পাশ থেকে অগ্নিনির্বাপক যন্ত্র দিয়ে পানি ছিটানো হবে। এরপরেই ক্রিকেটারদের জানানো হবে ফুলেল শুভেচ্ছা, সাথে কাটা হবে কেক। সেখান থেকে বোর্ডের নিজস্ব গাড়িতে নেয়া হবে বিসিবিতে। পরে বাকি আনুষ্ঠানিকতা।

অনূর্ধ্ব-১৯ বিশ্বকাপের ফাইনালে শক্তিশালী ভারতকে হারিয়ে স্বপ্নের সোনালি ট্রফি জয় করে যুবা টাইগারা। শুধু ক্রিকেট নয়, গোটা দেশের ক্রিয়াঙ্গনে বিশ্বজয়ের ট্রপি এইবারই প্রথম।

Sharing is caring!

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *