মায়ের শোকে পাগল তিন ভাই-বোন, ১০ বছর ধরে বন্দি

দীর্ঘ ১০ বছর ধরে অন্ধকার ঘরে বন্দি উচ্চতর ডিগ্রি অর্জনকারী তিন ভাই-বোন। বয়স ৩০ থেকে ৪২ বছরের মেধ্যে। বড় ভাই একসময় আইনজীবী ছিলেন। ছোট বোনের মনোবিজ্ঞানে স্নাতকোত্তর ডিগ্রি রয়েছে। সব থেকে ছোট ভাইটি ভালো ক্রিকেট খেলতেন। তিনিও স্নাতক শেষ করেছিলেন।
এতো ডিগ্রি অর্জন করেও কেন থাকছেন সামাজের মূল স্রোত থেকে বিচ্ছিন জায়গায়। তাও আবার একদিন, দুদিন নয় পুরো ১০ টি বছর অন্ধকার ঘরে বন্দি। এই সময়ের মধ্যে কেউ এক বারের জন্যও ঘর থেকে বের হতে পারেননি।

এই ঘটনা ভারতের গুজরাটের রাজকোটের। ওই তিন ভাই-বোনের বাবা একজন সরকারি কর্মচারী। ১০ বছর আগে তার স্ত্রী মারা যায়। মা মার যাওয়ার পর শোকে বিহ্বল হয়ে পড়ে তিন ভাই-বোন। সেই শোকের আবহ তারা কাটিয়ে উঠতে পারেননি। মা মারা যাওয়ার পর থেকেই তারা অদ্ভুতভাবে নিজেদের ঘুটঘুটে অন্ধকার ঘরে বন্দি করে রাখেন। শেষমেশ তাদের বাবা সম্প্রতি একটি স্বেচ্ছাসেবী সংগঠনের সহায়তায় তিন সন্তানকে উদ্ধার করেছেন। দশ বছর ধরে তিনি বারবার ছেলেমেয়েদের ঘর থেকে বের করে আনার চেষ্টা করেও পারেননি। তাই প্রতিদিন ওই ঘরের বাইরেই খাবারের থালা রেখে যেতেন তিনি।

স্বেচ্ছাসেবী সংগঠনের লোকজন জানিয়েছেন, দরজা ভেঙে ঘরে ঢুকে তারা যে অবস্থা দেখেছিলেন তা বলার মতো নয়। ঘরের ভেতরে বাসি-পঁচা খাবার আর ময়লার দুর্গন্ধ, চারিদিকে খবরের কাগজ ছড়িয়ে ছিটিয়ে ছিল। তিন ভাই-বোনকে ঘর থেকে উদ্ধার করে চিকিত্সার জন্য পাঠানো হয়েছে। তাদের মানসিক অবস্থা ভালো নয়। মাথার চুলে জট পাকিয়েছে, শরীরের বিভিন্ন অংশে কালি আর ধুলো-ময়লা বাসা বেঁধেছে। তারা যেন স্বাভাবিক জীবন ফিরে পান এখন সে চেষ্টাই করা হচ্ছে।

Sharing is caring!

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *