শ্রীলঙ্কা সফরে যাচ্ছেন টাইগাররা!

করোনা ভাইরাসের কারণে বাংলাদেশের একের পর এক সিরিজ স্থগিত হয়েছে। তাই আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে টাইগারদের ফিরতে আরও সময় নিতে হচ্ছে। সর্বশেষ এশিয়া কাপও স্থগিত হয়েছে। ফলে ক্রিকেটে ফেরাটা টাইগারদের জন্য আরও কঠিন হয়ে গেল। তবে আগামী সেপ্টেম্বরে শ্রীলঙ্কা সফরে যাওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে বাংলাদেশ দলের।

রবিবার (১২ জুলাই) এ কথা জানিয়েছেন বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের প্রধান নির্বাহী নিজামউদ্দিন চৌধুরী সুজন। তবে চূড়ান্ত কোনো সিদ্ধান্ত এখন আসবে না। এই সফরের ব্যাপারে প্রাথমিক ভাবে দুই বোর্ডের সঙ্গে আলোচনা হয়েছে।

প্রধান নির্বাহী বলেন, ‘এটা নিয়ে প্রাথমিক আলোচনা হতে পারে। তবে চূড়ান্ত কোনো সিদ্ধান্ত হয়নি। শ্রীলঙ্কা ক্রিকেট বোর্ডের (এসএলসি) সাথে আমাদের কথা হচ্ছে, তবে সেটা প্রাথমিক পর্যায়ে রয়েছে। চূড়ান্ত কোনো সিদ্ধান্ত হয়নি।

এদিকে টাইগাররা যদি শ্রীলঙ্কা সফরে যায়, তবে তার আগেই সেপ্টেম্বরেই হাই-পারফরম্যান্স (এইচপি) দলের শ্রীলঙ্কা সফরে যাওয়ার কথা রয়েছে। বিসিবির এক পরিচালক এইচপি দলের এই সফরে কথা আগেই জানিয়েছিলেন।
আসন্ন শ্রীলঙ্কা সফরে বাংলাদেশ দলের টেস্ট স্কোয়াডে ফিরেছেন ফাস্ট বোলার মুস্তাফিজুর রহমান।

ইনজুরির কারণে দীর্ঘদিন টেস্ট খেলতে পারেননি মুস্তাফিজ।

শ্রীলংকার বিপক্ষে দুই ম্যাচ টেস্ট সিরিজের জন্য ১৬ সদস্যের দলে মুস্তাফিজকে রেখেছেন বাংলাদেশের নির্বাচকেরা। দলে ফিরেছেন পেসার রুবেল হোসেনও।

তবে বাদ পড়েছেন পেসার শফিউল ইসলাম, ব্যাটসম্যান ইমরুল কায়েসও।

ভারত সফরের আগ মুহুর্তে উরুর ইনজুরির কারণে বাদ পড়েছিলেন ওপেনার ইমরুল কায়েস। সুস্থ না হওয়ার কারণে শ্রীলঙ্কার সফরের টেস্টে স্কোয়াডে রাখা হয়নি তাঁকে।

সম্প্রতি ভারতের বিপক্ষে টেস্ট সিরিজেও মুস্তাফিজকে রাখেনি বিসিবি, মুস্তাফিজ তখনও খেলার জন্য পুরোপুরি ফিট হয়নি বলে কর্তৃপক্ষ এমন সিদ্ধান্ত নিয়েছিল।

গত জুলাইয়ে দেশের মাটিতে দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে টেস্ট খেলার পর টেস্ট ম্যাচে মাঠে নামতে পারেননি মুস্তাফিজ।

গত বছর আগস্ট মাসের শেষ দিকে কাঁধের ইনজুরির কারনে একটি সার্জারি করাতে হয় মুস্তাফিজকে।

এরপর ডিসেম্বর-জানুয়ারিতে নিউজিল্যান্ড সফরে বাংলাদেশ দলে রাখা হয়েছিল মুস্তাফিজকে ওয়ানডে ও টি- টোয়েন্টি ম্যাচও খেলেছেন তিনি। তবে নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে টেস্টের আগেই হাঁটুর ইনজুরির কারণে দল থেকে বাদ দেয়া হয় মুস্তাফিজকে।

শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে আসন্ন সফরে দু’টি টেস্ট, তিনটি ওয়ানডে ও দু’টি টি-২০ ম্যাচ খেলবে বাংলাদেশ। আগামী ৭ই মার্চ শুরু হবে সিরিজের প্রথম টেস্ট। এরপর ১৫ই মার্চ থেকে শুরু হবে সিরিজের দ্বিতীয় ম্যাচ। এছাড়া ২৫শে মার্চ শুরু হবে ওয়ানডে ও ৪ঠা এপ্রিল থেকে শুরু হবে টি-টোয়েন্টি সিরিজ।

শ্রীলংকা সফরেই বাংলাদেশ নিজেদের ইতিহাসে শততম টেস্ট খেলবে। কলম্বোর পি.সারা ওভালে সিরিজের দ্বিতীয় টেস্ট ম্যাচে নিজেদের শততম টেস্ট খেলবে বাংলাদেশ।

Sharing is caring!

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *