স্টোরে কাজ করা ছেলেটি এখন তারকা ক্রিকেটার

ভাগ্যে আর চেষ্টা থাকলে মানুষ নিজেকে অনেক ওপরে নিয়ে যেতে পারে। এই ক্রিকেটার যদি নিজ দেশে থাকতেন ভারতীয় দলে খেলতে পারতেন কি না বলা মুশকিল।

তবে তিনি পাঞ্জাবের হয়ে অনূর্ধ্ব-১৫ ও ১৭ দলের হয়ে খেলেছেন। তার বাড়ি ছিল একেবারে মোহালি স্টেডিয়ামের কাছেই। ছোট থেকে মোহালির স্টেডিয়ামে প্র্যাকটিস করেছেন। কিন্তু এখন তিনি খেলছেন আয়রল্যান্ডের জাতীয় দলের হয়ে।

আয়ারল্যন্ডের হয়ে তিনি কী করে খেলছেন সেটা নিয়ে তিনি নিজেও মাঝেমধ্যে দ্বন্দ্বে থাকেন। কারণ তিনি আয়ারল্যান্ডে ক্রিকেট খেলবেন বলে আসেননি। কিন্তু সেই সিমি সিং এখন আয়ারল্যান্ড দলের নির্ভরযোগ্য ক্রিকেটার।

আজ ইংল্যান্ডের বিরুদ্ধে ওয়ানডে ম্যাচ খেলবে আয়ারল্যান্ড। খেলতে দেখা যাবে এই ভারতীয় ক্রিকেটারকে। করোনার জেরে লকডাউনের দীর্ঘদিন পর ক্রিকেট মাঠে ফিরেছে। ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিরুদ্ধে টেস্ট সিরিজ খেলল ইংল্যান্ড। এর পর ইংল্যান্ড খেলবে পাকিস্তানের বিরুদ্ধে। এরই মাঝে আয়ারল্যান্ডের সঙ্গেও তিনটি ওয়ানডে খেলবে ইংল্যান্ড। তবে এই সিরিজে ইংল্যান্ডের অনেক প্রথম সারির ক্রিকেটারকে বিশ্রাম দেওয়া হয়েছে।

সিমি সিং বলছেন, তবুও তাদের মতো অপেক্ষাকৃত কম শক্তিশালী আয়ারল্যান্ড দলকে বেগ পেতে হবে। আয়ারল্যান্ডের হয়ে ১৮টি ম্যাচ খেলেছেন সিমি সিং। রান করেছেন ২৪২। ১৮টি উইকেট পেয়েছেন।

সিমি সিং বলছিলেন, ‘আয়ারল্যান্ড আসার পর নিজের খরচ চালানোর জন্য স্টোরে কাজ করতাম। ছুটির দিনে ক্রিকেট খেলতাম। তবে সেটা কেউই জানত না। আমি এখানে এসে প্র্যাকটিস শুরু করি। তার পর একের পর এক ধাপ পেরিয়ে আয়ারল্যান্ডের জাতীয় দলে সুযোগ পাই। তবে জাতীয় দলের হয়ে খেলতে আমার ১২ বছর লেগেছে। এক-দুদিনে হয়নি। প্রতিটা স্তরের ক্রিকেটে আমাকে পারফর্ম করতে হয়েছে।’

‘করোনা পরিস্থিতির জন্য এখনও পর্যন্ত সাদা বলের ক্রিকেট শুরু হয়নি। এবার ইংল্যান্ড- আয়ারল্যান্ড প্রথম ওয়ানডে খেলবে। করোনা পরিস্থিতির জন্য প্রস্তুতি নিতে পারিনি আমরা কেউই। ফিটনেস বজায় রেখেছি। তবে করোনা পরিস্থিতির আগে আফগানিস্তান ও ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিরুদ্ধে আমরা খেলেছি। সেখানে দলের পারফরম্যান্স ভাল ছিল।

Sharing is caring!

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *