হাডসন নদীতে ভাসছিল বাংলাদেশি তরুণ-তরুণীর লাশ

হঠাত আমেরিকার নিউজারছিতে হাডসন নদিতে বাংলাদেশি ত্রুন ত্রুনির লাস দেখা যায়।একজন পথচারি লাস টা দেখে কিছু মানুসকে দেখায় তারপর তারা পুলিশ কে ফন করে ডেকে বিসয় টা বলে ।
হাডসন নদী থেকে বাংলাদেশি তরুণসহ এক তরুণীর লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। স্থানীয় সময় গত শনিবার বিকেলে হাডসন নদী থেকে পুলিশ মৃতদেহ দুটি উদ্ধার করেছে। উমাইর সালেহ নামের তরুণের বয়স ২৩ বছর। নিউজার্সি অঙ্গরাজ্যের এডিসন শহরের বাসিন্দা বাংলাদেশি ওই তরুণসহ অজ্ঞাত আরও এক তরুণীকে খুন করে কে বা কারা নদীতে ফেলে দিয়েছে বলে পুলিশ ধারণা করছেন। মার্কিন সংবাদমাধ্যম বাংলা প্রেস এ খবর জানিয়েছে।

স্থানীয় হাডসন কাউন্টির কৌসুলি এসথার সুয়ারেজ জানান, শনিবার সকালে জার্সি সিটির মরিস ক্যানেল পার্কের অদূরে হাডসন নদীতে একটি মৃতদেহ ভেসে থাকতে দেখেন এক পথচারি। তিনি ফোন করে বিষয়টি পুলিশকে জানানোর পর পৌনে ৮টার দিকে পুলিশ সেখানে গিয়ে মৃতদেহটি উদ্ধার করে। সেটি ছিল এক তরুণীর মৃতদেহ, যার বয়স আনুমানিক ২২ বছর। মেয়েটি নিউ ইয়র্কের ম্যানহাটনের বাসিন্দা ছিল। তার প্রকৃত পরিচয় এখনো পাওয়া যায়নি।

প্রায় ৫ ঘণ্টা পর মরিস ক্যানেল পার্কের ৫০ ফুট দূরে হাডসন নদীতে আরেকটি মৃতদেহ ভাসতে দেখে পথচারিরা পুলিশকে খবর দেয়। পুলিশ উক্ত উদ্ধার করার পর দেখতে পায় যে সেটি এক তরুণের মৃতদেহ। তার পকেটে থাকা পরিচয়পত্র দেখে জানা যায় যে, তার নাম উমাইর সালেহ এবং নিউ জার্সির এডিসন শহরে তার বাড়ি। তার পরিবারকে খবর দেয়া হলে তারা এসে মৃতদেহ শনাক্ত করেন। তার মাথায় বেশ কয়েকটি আঘাতের চিহ্ন ছিল।

উমায়ের সালেহ’র মা একজন অভিবাসী বাংলাদেশি এবং তিনি স্কুলে শিক্ষিকতা করেন। তিনি পুলিশকে জানিয়েছেন যে, তার মেধাবী ছেলে নিউজার্সির রাটগার্টস ইউনিভার্সিটি থেকে এ বছরই প্রেসিডেন্ট অ্যাওয়ার্ডসহ গ্রাজুয়েশন করেছে। শনিবার বিকেলে সে হাঁটতে যাওয়ার কথা বলে বাড়ি থেকে বের হয়। এরপর আর ফেরেনি। সালেহ সাঁতার জানতো বলেও জানায় তার মা। পুলিশ ঘটনার তদন্ত শুরু করেছে।

Sharing is caring!

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *